সর্বশেষ সংবাদ

২৭ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার, ৭:৪০

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলায় ব্যর্থ হয়েই সরকার মদদপুষ্ট দুর্বৃত্তদের দিয়ে তার প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়েছে

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে ফল চুরি, মাছ চুরি, জমি দখল ও চাঁদাবাজিসহ ৫টি মিথ্যা মামলা দায়ের করার পরে সরকারের মদদপুষ্ট দুর্বৃত্তদের গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে হামলা ও দখলের অপচেষ্টা, লুটপাট এবং ভাংচুরের ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমীর ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরোয়ার আজ ২৭ অক্টোবর প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “সরকার ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়েই তাদের মদদপুষ্ট দুর্বৃত্তদের দিয়ে তার প্রতিষ্ঠানে এ ধরনের ন্যক্কারজনক হামলা চালিয়েছে। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

গণস্বাস্থ্য হাসপাতাল দখলের অপচেষ্টা, লুটপাট ও ভাংচুরের পরে সেখানে কর্মরত ডাক্তার, নার্স, কর্মচারী সকলেই আতঙ্কিত। সেখানে চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকায় রোগীরা রোগ যন্ত্রণায় কষ্ট পাচ্ছে। জাতীয় ঐক্যজোটে যোগ দেয়ার কারণেই সরকার তার উপর রুষ্ট হয়ে এ ধরনের ন্যক্কারজনক ও অনৈতিক ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনা থেকেই প্রমাণিত হয় যে, সরকারের সাথে ভিন্ন মত পোষণকারী কারো জানমালের কোন নিরাপত্তা নেই। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভূমিকাও জনমনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি করেছে। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে থানায় মামলা দায়ের করতে গেলেও তা গ্রহণ করা হয়নি। এ ঘটনার মধ্য দিয়ে সরকারের একদলীয় ফ্যাসিবাদী চরিত্রই জাতির সামনে অত্যন্ত নগ্নভাবে প্রকাশিত হয়েছে। সরকারের মদদে এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হওয়ার জন্য আমি দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে দায়ের করা সকল মিথ্যা মামলা অবিলম্বে নিঃশর্তভাবে প্রত্যাহার এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় জড়িত সন্ত্রাসী দুর্বৃত্তদের গ্রেফতার করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”