১৮ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
কামারুজ্জামানকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়া উচিত- ব্যারিস্টার আহসান
৯ এপ্রিল ২০১২, সোমবার,
Sunday, 01st April, 2012
জামায়াতে ইসলামীর সহকারি সেক্রেটারী জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে সরকার পক্ষের আনিত ১৯৭১ সালের কথিত মানবতাবিরোধী অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দানের আবেদনের শুনানি শুরু হয়েছে। কামারুজ্জামানের পক্ষে তার আইনজীবী ব্যারিস্টার মুনশী আহসান কবির গতকাল ৩৬ পৃষ্ঠার লিখিত আবেদন পেশ করেন। আগামী ১০ এপ্রিল মৌখিক শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। ডিফেন্স টিমের প্রধান কৌসূলী ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক দেশের বাইরে থাকায় গতকাল মৌখিক শুনানি হয়নি।
গতকালের লিখিত শুনানিতে মুনশী আহসান কবির বলেন, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে ধ্বংস করার জন্য ক্ষমতাসীন দল এই সংগঠনের নেতৃবৃন্দের চরিত্র হনন করতেই এই সব অভিযোগ এনেছে। কামারুজ্জামান ১৯৭১ সালে কোন প্রকার হত্যা, গণহত্যা, লুণ্ঠনসহ মানবতাবিরোধী কোন অপরাধের সাথে জড়িত ছিলেন না। যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে তার সবই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, সুনির্দিষ্ট একটি অভিযোগও নেই যা দিয়ে তাকে অভিযুক্ত করা সম্ভব।
তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধ ইস্যু একটি মীমাংসিত ইস্যু। স্বাধীনতা পরবর্তী সরকার ১৯৫ জন পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীকে বিচারের জন্য ১৯৭৩ সালে আন্তর্জাতিক অপরাধ আইন পাস করে। পরবর্তীতে বাংলাদেশ-ভারত, পাকিস্তান এই ত্রি-পক্ষীয় চুক্তির মাধ্যমে তাদেরকে বিচার না করেই পাকিস্তানের কাছে হস্তান্তর করা হয়। \'ফরগিভ এবং ফরগেট\' ঘোষণার মাধ্যমে তৎকালীন সরকারই যুদ্ধাপরাধ ইস্যুর মীমাংসা করে গেছেন। এখন ৪০ বছর পরে আবার সেই অভিযোগে কারো আটক করা বা বিচারের সম্মুখীন করার কোন বৈধতা নেই। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে দমনের কৌশল হিসেবে ক্ষমতাসীন দল এই ইস্যুকে সামনে এনেছে যা আইনের দৃষ্টিতে সিদ্ধ নয়। কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে, তার একটিও সুনির্দিষ্ট নয়। তাকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়া উচিত।