১৮ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
অধ্যাপক গোলাম আযমের স্বাস্থ্যের প্রতি অবহেলা দূরভিসন্ধিমূলক - মিসেস আফিফা আযম
৯ এপ্রিল ২০১২, সোমবার,
Sunday, 01st April, 2012
আমার স্বামী, অধ্যাপক গোলাম আযম, ৯০ বৎসর বয়সে আজ ৮১ দিন কারান্তরীণ অবস্থায় নির্জন \'প্রিজন সেল\' এ একাকী মানবেতর জীবন যাপন করছেন। আজ, ৩১শে মার্চ, আমার স্বামীর সাথে \'প্রিজন সেল\' এ দেখা করে উনার খাদ্যের সমস্যার ব্যাপারে কোন সুরাহা হয়নি বলে জানতে পারলাম। যার ফলে, তিনি পেটের পীড়ায় অত্যন্ত কষ্ট বোধ করছেন। তদুপরি, নতুন করে ঘুমের সমস্যাও দেখা দিয়েছে। অধ্যাপক গোলাম আযমের খাবার সমস্যা দূর করার জন্য এত চেষ্টার পরও কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা ও নির্লিপ্ততা রহস্যজনক। এক ডজনের উপর দরখাস্ত করার পরও কর্তৃপক্ষ কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় ফেব্রুয়ারি ২০১২\'তে আমরা আদালতের শরনাপন্ন হই। গত ৬ই মার্চ আদালত হতে বাসায় রান্না করা খাবার সরবরাহের আদেশ দেয়ার পরও কর্তৃপক্ষের কোন ভ্রক্ষেপ নেই! বিগত ২৫ দিনে কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে পরিবারের সাথে কোন যোগাযোগ করেনি। আমরা যোগাযোগ করার বহু চেষ্টা করেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোন সাড়া পাইনি। অবস্থাদৃষ্টে প্রশ্ন জাগা স্বাভাবিক যে, আমার স্বামীকে ঠিকমত খাবার খেতে না দেয়ার পেছনে কোন অসৎ উদ্দেশ্য রয়েছে কি না? নইলে, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ইসলামী চিন্তাবিদ, গবেষক, লেখক ও বর্ষীয়াণ এই রাজনীতিবিদকে ৯০ বৎসর বয়সে এভাবে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন রেখে মানসিকভাবে নির্যাতনের পাশাপাশি ৮১ দিন পর্যন্ত এভাবে অর্ধভূক্ত রেখে উনার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটানোর আর কি কারণ থাকতে পারে তা আমাদের বোধগম্য নয়। আমরা এ ধরনের নৈরাজ্য ও স্বেচ্ছাচারিতার দ্রুত অবসান চাই এবং আমার স্বামীর খাবার ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের দ্রুত ও যথাযথ দৃষ্টি কামনা করি। অন্যথায়, আমার স্বামীর মারাত্মক কিছু হলে তার সম্পূর্ণ দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উপর বর্তাবে। আশা করি কর্তৃপক্ষ তাদের এ দায়-দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন হয়ে আশু এ সমস্যা সমাধানের জন্য কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

তারিখঃ ৩১/০৩/২০১২
সৈয়দা আফিফা আযম
 স্বামীঃ অধ্যাপক গোলাম আযম