সর্বশেষ সংবাদ

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, সোমবার, ২:২৭

রোহিঙ্গাদের উপর অব্যাহতভাবে পরিচালিত গণহত্যায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ

জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে জরুরী ভিত্তিতে রাখাইন রাজ্যে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বাহিনী মোতায়েনের আহ্বান

মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর সে দেশের সরকারের অব্যাহতভাবে পরিচালিত গণহত্যায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে তা বন্ধ করার লক্ষ্যে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে জরুরী ভিত্তিতে রাখাইন রাজ্যে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বাহিনী মোতায়েনের আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর জনাব মকবুল আহমাদ আজ ১১ সেপ্টেম্বর প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর সে দেশের সরকারের অব্যাহতভাবে পরিচালিত গণহত্যায় আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের ব্যাপারে বিশ্ববাসী শংকিত ও মর্মাহত।

মিয়ানমারের মুসলমানদের উপর সে দেশের সরকারের অব্যাহতভাবে পরিচালিত গণহত্যার বিরুদ্ধে সারা বিশ্বের মানুষ প্রতিবাদে সোচ্চার হওয়া সত্ত্বেও গণহত্যা বন্ধের ব্যাপারে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ত্বরিত কোন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রতিবাদ উপেক্ষা করে মিয়ানমার সরকার পরিকল্পিতভাবে রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর অব্যাহতভাবে গণহত্যা চালিয়ে তাদের বিতাড়িত করছে। মিয়ানমার সরকার বিশ্ববাসীর মতামতের কোন তোয়াক্কাই করছে না।

বিভিন্ন সূত্র থেকে খবর পাওয়া যাচ্ছে যে, মিয়ানমার সরকার সে দেশ থেকে রোহিঙ্গা মুসলমানদের সম্পূর্ণরূপে উচ্ছেদ করার লক্ষ্যে শীঘ্রই আরো বড় ধরনের সামরিক পদক্ষেপ শুরু করতে যাচ্ছে। সুতরাং মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর পরিচালিত গণহত্যা বন্ধ করে তাদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে নাগরিকত্ব পুনর্বহাল করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে অবিলম্বে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে জরুরী ভিত্তিতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বাহিনী মোতায়েন করার জন্য আমি জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

বাংলাদেশে আশ্রয় গ্রহণকারী রোহিঙ্গা মুসলমানগণ অসহায় অবস্থায় আছে। তাদের জন্য জরুরী ভিত্তিতে সাহায্য পাঠানোর জন্য সকল মুসলিম দেশসহ আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা, সংগঠন ও বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আমি আহ্বান জানাচ্ছি।”