সর্বশেষ সংবাদ

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, রবিবার, ৮:০১

খাদ্যমন্ত্রী এড: কামরুল স্ব-স্ত্রীক মিয়ানমারে খাদ্য ক্রয়ের উদ্দেশ্যে সফর করার লজ্জাজনক ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ

মিয়ানমার থেকে খাদ্য ক্রয়ের লজ্জাজনক সিদ্ধান্ত বাতিলের আহ্বান

মিয়ানমার সরকার যখন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর জঘন্যতম গণহত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন, নিপীড়ন চালিয়ে তাদের বাড়ী-ঘর জ্বালিয়ে দিয়ে তাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য করছে ঠিক সে মুহূর্তে বাংলাদেশ সরকারের খাদ্যমন্ত্রী এড: কামরুল ইসলামের স্ব-স্ত্রীক মিয়ানমারে খাদ্য ক্রয়ের উদ্দেশ্যে সফর করার লজ্জাজনক ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারী জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান আজ ১০ সেপ্টেম্বর প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “মিয়ানমারের সরকার যখন সে দেশের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর ইতিহাসের জঘন্যতম গণহত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন, নিপীড়ন চালিয়ে তাদের বাড়ী-ঘর জ্বালিয়ে দিয়ে তাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য করছে ঠিক সে মুহূর্তে বাংলাদেশ সরকারের খাদ্যমন্ত্রী এড: কামরুল ইসলামের স্ব-স্ত্রীক মিয়ানমার থেকে খাদ্য ক্রয়ের উদ্দেশ্যে মিয়ানমার সফরে যাওয়ার লজ্জাজনক ঘটনায় আমরা বিস্মিত হয়েছি।

খাদ্যমন্ত্রী এড: কামরুল ইসলাম ইতোপূর্বে বিদেশ থেকে পচা গম আমদানী করে কুখ্যাতি অর্জন করেছেন। দেশের মানুষ পচা গম কেনার ঘটনার তদন্ত করে খাদ্যমন্ত্রীর বিচার দাবী করেছিল। কিন্তু সরকার তার বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ না নিয়ে সে ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে পচা পগম হজম করতে জাতিকে বাধ্য করেছে। সম্প্রীতি যখন মিয়ানমার সরকার সে দেশের নিরীহ ও নিরাপরাধ রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর গণহত্যা চালিয়ে হাজার হাজার মহিলাকে ধর্ষণ করে তাদের ঘর-বাড়ী জ্বালিয়ে দিয়ে তাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য করছে ঠিক সে মুহূর্তে রোহিঙ্গা মুসলমানদের রক্তের উপর পা দিয়ে বাংলাদেশের খাদ্যমন্ত্রী এড: কামরুল ইসলামের স্ব-স্ত্রীক মিয়ানমারে খাদ্য ক্রয় করতে যাওয়ার লজ্জাজনক ঘটনায় বাংলাদেশের দুঃখভারাক্রান্ত জনগণ বিস্মিত, লজ্জিত ও মর্মাহত। তিনি বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের মাথা নীচু করে দিয়েছেন এবং বাংলাদেশের ভাবমর্যাদা ক্ষুন্ন করেছেন। তার এ সফর মিয়ানমারের খুনীদের আরো উৎসাহিত করবে এবং এতে বাংলাদেশের নতজানু পররাষ্ট্র নীতিই প্রমাণিত হলো।

বাংলাদেশ মিয়ানমারের পরিবর্তে থাইল্যান্ড, কেম্বোডিয়া ও ভিয়েতনাম বা অন্য কোন দেশ থেকেও খাদ্য ক্রয় করতে পারত। কিন্তু তা না করে খাদ্যমন্ত্রী মিয়ানমার থেকে খাদ্য ক্রয় করতে গিয়ে দেশের জনগণকে ভয়ংকর লজ্জায় ফেলে দিয়েছেন।
আমি আশা করি সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে এবং মিয়ানমার থেকে খাদ্য ক্রয়ের লজ্জাজনক সিদ্ধান্ত বাতিল করবেন ও অবিলম্বে খাদ্যমন্ত্রীকে দেশে ফিরিয়ে আনবেন।”